শিশু আব্দুল্লাহ নিয়মিত মসজিদে এসে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ জামআতের সঙ্গে পড়েছে পুরস্কার হিসেবে জিতে নিয়েছেন একটি বাইসাইকেল।

এই সাত বছরের শিশু আব্দুল্লাহ। অসাধারণ এক প্রতিভা। শুধু পুরস্কারই জিতে নেয়নি, জয় করেছে সব শ্রেণি-পেশার মানুষের হৃদয়।এ অল্প বয়সেই টানা ৫০ দিন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ জামাআতের সঙ্গে আদায় করেছে। বড়দের সঙ্গে শিশু আব্দুল্লাহও পুরস্কার হিসেবে জিতে নিয়েছেন একটি বাইসাইকেল। শুধু তাই নয়, মসজিদ কমিটি আয়োজিত প্রতিযোগিতা ও স্লোগান- ‘এসো বন্ধু নামাজ পড়ি, কুরআন দিয়ে জীবন গড়ি’ স্লোগান স্বার্থক করে তুলেছেন। কারণ ছোট্ট আব্দুল্লাহ যে বাবার সঙ্গে নিয়মিত মসজিদে এসে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ জামআতের

এ বি’শ্বে এমন এক সু’লতান রয়েছে’ ২২ ক্যা’রাট সোনা দিয়ে তৈরি প্রা’সাদ।

রাজারা সোনার চামচ মুখে দিয়ে জ’ন্মাতেন, সোনার থালায় খেতেন-এ সব কথা অনেক শুনেছেন। কিন্তু সোনার প্রাসাদ! এ বিশ্বে এমন এক রাজা রয়েছেন তিনি বসবাসের জন্য আস্ত সোনার প্রাসাদই বানিয়ে ফে’লেছেন।তিনি হলেন ব্রুনেইয়ের সুলতান হাসানল বলকিয়াহ। ১৯৮৪ সালে ব্রিটিশদের হাত থেকে মুক্ত হয় ব্রুনেই। সে বছরই সুলতান হাসানল বলকিয়াহ এই প্রাসাদ গড়ে তুলেছিলেন বসবাসের জন্য। এই প্রাসাদের নাম ইস্তানা নুরুল ই’মান। তবে বলকিয়াহ রাজ পরিবারে আরও একটি প্রাসাদ রয়েছে। তার নাম হাউস অব বালকিয়াহ। ১৪

প’রিচয়’ প্রেম ও বিয়ে সৌদি আরবে’ টাকা ও গহনা নিয়ে পা’লিয়ে দেশে আসে স্বামী।

সম্প্রতি সৌদি আরবে অবস্থান করা অবস্থায় দুজনের প’রিচয়। পরে প্রে’ম ও বিয়ে। আট মাস সংসারের পর স্ত্রীর জমানো টাকা ও ১০ ভরি সোনার গহনা নিয়ে পা’লিয়ে দেশে আসে স্বামী। খ’বর পেয়ে সপ্তাহ পর স্ত্রী স্বামীর গ্রামের বাড়িতে এসে অবস্থান নিলে সেখানেই মা’রধ’রের শি’কার হন। এ অবস্থায় পু’লিশ উ’দ্ধার করে থা’নায় নিয়ে আসে। রবিবার বি’কেলে এ ঘ’টনা ঘ’টে ময়মনসিংহের নান্দাইলের জাহাঙ্গীরপুর ইউনিয়নের সুরাটি গ্রামে। থা’নায় অবস্থান করা ওই না’রী ও লিখিত অ’ভিযো’গ থেকে জানা যায়,

প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে কেন ভালোবাসতে হবে ?

আমাদের সন্তান-সন্তুতি, মা-বাবা তথা নিজের জীবনের চেয়েও বেশি ভালোবাসতে হবে যাকে; তিনি হলেন হজরত মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। কেন নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে এতবেশি ভালোবাসতে হবে? এ সম্পর্কে কুরআন-সুন্নাহর নির্দেশনাই বা কী? হাদিসে পাকে প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামই এ ‘কেন ভালোবাসতে হবে’-এর উত্তর দিয়েছেন সুস্পষ্টভাবে। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে এতটা ভালোবাসার নামই ‘ঈমান’। তাতে মুমিন মুসলমানের ঈমান পরিপূর্ণতা লাভ করে। হাদিসে এসেছে-হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন,